উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

একটি নতুন অনলাইন আগুন পর্যবেক্ষণ টুল দিয়ে কুয়াশার সাথে যুদ্ধ করছে ইন্দোনেশিয়া

Main page of the Global Forest Watch-Fires online tool

গ্লোবাল ফরেস্ট ওয়াচ-ফায়ার অনলাইন টুলের প্রধান পাতা  

দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ায় দাবানলের ফলে ব্যাপক কুয়াশার সৃষ্টি হয় ও পশ্চিম ইন্দোনেশিয়ায় এটি ঘটে মূলত পাম তেল পোড়ানোর ফলে। এছাড়াও এই কুয়াশা দূষণ সিঙ্গাপুর এবং মালয়েশিয়াকেও দূষিত করে চলেছে, যেগুলো  ইন্দোনেশিয়ার রিয়াউ প্রদেশের কাছাকাছি অবস্থিত। এই অঞ্চলটি দাবানলের ‘গ্রাউন্ড জিরো‘ হিসেবে পরিচিত। 

বন ও ভূমি আগুন ঘটনায় অগ্নিনির্বাপক বা দমকলকর্মীরা যাতে দ্রুত সাড়া দিতে পারে সে জন্য একটি অনলাইন আগুন পর্যবেক্ষণ টুল তৈরি করা হয়েছে। এতে বাস্তব সময়ের তথ্য ব্যবহার করা হয়েছে।

গ্লোবাল ফরেস্ট ওয়াচ-আগুন (জিএফডাবলু-আগুন) অনলাইন টুল “নাসার একটিভ আগুন সিস্টেম থেকে বাস্তব সময় উপগ্রহ তথ্য, উচ্চ রেজল্যুশনের উপগ্রহ চিত্র, গুরুত্বপূর্ণ পণ্যের যেমন পাম তেল এবং কাঠ সজ্জার ভূমি আচ্ছাদনের বিস্তারিত মানচিত্র এবং অনুমোদন, আগুনের কার্যকলাপ বোঝার জন্য আবহাওয়া পরিস্থিতি এবং বায়ুর গুণমান তথ্য” ব্যবহার করে। 

জিএফডাবলু-আগুন ক্ষতিকারক আগুন প্রতিরোধে মানুষের ক্ষমতায়ন করতে পারে। যারা অবৈধভাবে বন পুড়িয়ে ফেলার জন্য দায়ী তাঁদের নিয়ন্ত্রণ করার জন্য এটি একটি উত্তম সহায়ক।  

ওয়ার্ল্ড রিসোর্স ইনস্টিটিউট, ডিজিটালগ্লোব, ইন্দোনেশিয়ান সরকার, গুগল, এবং ইসরি এই টুলটির উন্নয়নে কাজ করেছে। 

Screenshot of the online map showing forest fire cases in Southeast Asia

এই অনলাইন মানচিত্রটির স্ক্রিনশট দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার দাবানলের ক্ষেত্রগুলো দেখাচ্ছে।  

ফিউচারগোভ এর কাছে দেওয়া একটি সাক্ষাত্কারে ওয়ার্ল্ড রিসোর্স ইনস্টিটিউট এর আন্দিকা পুটরাডিটামা জিএফডাবলু-আগুন প্ল্যাটফর্মের স্বতন্ত্রতা এবং মান সম্পর্কে ব্যাখ্যা করেছেন:

অতীতের অন্যান্য অগ্নি পর্যবেক্ষণ সরঞ্জামের সাথে তুলনা করলে দেখা যায়, জিএফডাবলু-আগুন একটি স্বতন্ত্র সিস্টেম। এই সিস্টেমটি হটস্পট, বাতাসের দিক, জমির আকৃতি ও বৈশিষ্ট্য এবং অনুমোদন [বনজ লাইসেন্স] এর মতো তথ্যের সম্মিলন ঘটায়, যেখানে এগুলো সব একটিমাত্র প্ল্যাটফর্মেই পাওয়া যায়। 

জিএফডাবলু-আগুন সিস্টেমটি অগ্নিনির্বাপক বা দমকলবাহিনীকে আগুন লাগার পর সাড়া দেবার সময়সীমা ২০ ঘন্টা থেকে কমিয়ে দুই থেকে চার ঘন্টায় নামিয়ে এনেছে। 

Satellite image showing a burning palm oil plantation.

স্যাটেলাইটের ছবিতে একটি জ্বলন্ত পাম তেল স্টেশন।  

নিগেল সিজার, জেমস অ্যান্ডারসন এবং জোশ উইনার আলোচনা করেছেন, কিভাবে ডিজিটাল গ্লোব চিত্রাবলী ব্যবহার করে বন ও ভূমির দাবানলের কারণ খুঁজে বের করা যেতে পারে:

এই অতি-ক্ষমতাসম্পন্ন পদ্ধতিতে পাওয়া খুব উচ্চ রেজল্যুশনের উপগ্রহ চিত্র আমাদের দেয় দাবানলের গভীর চিত্র… আপনি এর মাধ্যমে আলাদা আলাদা করে প্রতিটি গাছ দেখতে পাবেন এবং এমনকি প্রজাতিও চিহ্নিত করতে পারবেন … এমনকি এতে সক্রিয় দাবানলের অগ্নিশিখার সাথে তাদের ধোঁয়া উদগত ধূম এবং সৃষ্ট কুয়াশা একসঙ্গে দেখা যায়। 

খোলা তথ্য হিসাবে এই টুলটি এখন সক্রিয় এবং সহজে পাওয়া যাচ্ছে। আশা করা যায়, এই টুলটি দাবানল ছড়িয়ে পড়া রোধ ও কুয়াশা দূষণের মাত্রা কমিয়ে আনবে যা এই অঞ্চলের লক্ষ লক্ষ অধিবাসীদের পরিবেশ, অর্থনীতি এবং স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে ব্যাপক ক্ষতি সাধন করেছে।  

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .