উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

সিরিয়াঃ- লেন্স অফ এ ইয়াং হোমিস- অবোরধে থাকা একটি শহরের আলোকচিত্র

যখন মার্চ ২০১১-এ, সিরিয়ার বিক্ষোভ প্রদর্শন শুরু হয়, তখন হোমস শহরের কয়েক বন্ধু, যাদের সকলের বয়স ২৫-এর নিচে, তারা সকলে তাদের শহরের অভূতপূর্ব বিক্ষোভের ছবি তোলার জন্য ক্যামেরা নিয়ে বের হয়ে পড়ে। এর পর তারা শাসকের হামলায় ক্ষতবিক্ষত শহরের রাস্তা এবং বিভিন্ন এলাকার ধ্বংসাবশেষের ছবি তুলতে শুরু করে। তারা তাদের লেন্সের মাধ্যমে বিশ্বকে দেখাচ্ছে যে হোমস দেখতে কেমন ছিল, আর এখন তার চেহারা কেমন। তারা বিপ্লবের শহরের বিপ্লবাত্মক মুহূর্তকে নথিভুক্ত করছে। এদিকে তারা প্রতিদিন সেই সমস্ত লোকদের কাছ থেকে অনুরোধ পান যারা হোমসের ঘড়বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে যাবার পর জানতে চায়, তা কি ধ্বংস হয়ে গেছে নাকি ঠিক আছে।

তারা জানাচ্ছেন যে তারা কেবলই একদল স্বেচ্ছাসেবক, যাদের কোন পেশাদার প্রশিক্ষণ নেই, কিন্তু তাদের কাজ অসাধারণ। তারা হচ্ছে হোমস শহরের চোখ (লেন্স অফ এ ইয়াং হোমসি):

Photo by the “Lens of a Young Homsi”, taken from their Facebook page

লেন্স অফ এ ইয়াং হোমসির একটি ছবি, যা তাদের ফেসবুকের পাতা থেকে নেওয়া হয়েছে।

এই ভিডিওতে তাদের কিছু কাজ প্রদর্শন করা হয়েছে এবং দেখানো হয়েছে কেন লেন্স অফ ইয়াং হোমসি তাদের জন্য এক ভিন্নতার, সৃষ্টি করছে যারা হোমস শহরের ঘরবাড়ি ছেড়ে পালিয়ে গেছে। :

বালির বস্তা, ব্যারিকেড, সর্বোতভাবে সজ্জিত সেনা, বুলেট, বোমা, একটা এলাকা থেকে বিচ্ছিন্ন আরেক চেক পয়েন্ট- এই সমস্ত বিষয়গুলো তরুণ হোমসিসরা তাদের লেন্সের মাধ্যমে তুলে ধরেছে:

ফেসবুক এবং টুইটারে আপনারা তাদের কাজগুলো দেখতে পাবেন।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .