বন্ধ করুন

গ্লোবাল ভয়েসেসকে শক্তিশালী করতে আমাদের সহায়তা করুন

আমরা ১৬৭টি দেশের উপর রিপোর্ট করি। আমরা ৩৫টি ভাষায় অনুবাদ করি। আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস।

প্রায় ৮০০ এর বেশী গ্লোবাল ভয়েসেস এর লেখক একসাথে কাজ করছে আপনার কাছে অজানা সব গল্প তুলে ধরতে। কিন্তু আমাদের পক্ষে একা সব করা কঠিন। আমাদের অনেকেই স্বেচ্ছাসেবক হলেও আমাদের সম্পাদক, প্রযুক্তি এবং অ্যাডভোকেসী প্রকল্প ও সামাজিক অনুষ্ঠানের ব্যয়ভারের মেটানোর জন্যে আপনাদের সাহায্য প্রয়োজন।

আমাদের সহায়তা করুন এখানে ক্লিক করে: »
GlobalVoices পাওয়া যাবে আরও জানুন »

জাপানঃ কি ভাবে বৈদ্যুতিক উপাদান থেকে জীবনকে বিছিন্ন এবং বিদ্যুৎ সঞ্চয় করবেন

এই প্রবন্ধটি জাপানের ভূমিকম্পের উপর করা আমাদের বিশেষ কাভারেজের অংশ

জাপানের নাগরিকরা বিদ্যুৎ সমস্যার সাথে জীবনকে খাপ খাইয়ে নেবার জন্য বিদ্যুৎ সঞ্চয়ের উপায় নির্ধারণ করছে, এর জন্য জাপানের জনতা জীবনের নানা ক্ষেত্রে বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতির ব্যবহার করা থেকে নিজেদের বিরত রাখছে।

এই মুহূর্তে জাপানের ৫৪টি পারমাণবিক চুল্লির মধ্যে মাত্র ১৯ টি চালু আছে এবং সরকার দেশটির নাগরিক-বিশেষ করে যারা জাপানের পূর্বাংশে বাস করে তাদের কাছ আবেদন জানিয়েছে যে তারা যেন বিদ্যুৎ ব্যবহারের পরিমাণ কমিয়ে দেয় । ফুকুশিমা পারমাণবিক চুল্লি বিপর্যয়ের পর থেকে বিদ্যুৎ-উৎপাদনে যে স্বল্পতা দেখা দিয়েছে, সেটি মোকাবেলার জন্য এই আবেদন।

গবেষণা প্রতিষ্ঠান মাইক্রোমিল পরিচালিত এক জরিপ অনুসারে [জাপানী ভাষায়] , এই জরীপে অংশ নেওয়া ৭০ শতাংশ নাগরিক গত কয়েক মাসে তাদের জীবন যাত্রা পাল্টে ফেলেছে। জরিপে অংশ নেওয়া বেশিরভাগ নাগরিক তরুণ, যাদের বয়স ২০-এর কোঠায়। তারা আটটি ভিন্ন অঞ্চল থেকে এসেছে। এদের সংখ্যাগরিষ্ঠ উত্তরদাতা বলেছে যে এখন তারা বেশিরভাগ সময় বাসায় কাটায়। বাসায় তারা বাতি বন্ধ রাখে এবং যে সময়টায় ব্যবহার করা হয়না, সে সময় বিভিন্ন বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতির তার খুলে রাখে।

বিদ্যুৎ বাঁচাও, সুইচ বন্ধ রাখ। ছবি বেভেলে-এর। সিসি বাই-এনসি-২.০

বিদ্যুৎ সংরক্ষণের জন্য যে সমস্ত উপায় গ্রহণ করা হচ্ছে তা এখন দেশটির এক বিতর্কের বিষয়, কিন্তু অনেকে তাদের দৈনন্দিন জীবনের বৈদ্যুতিক উপাদান ব্যবহারের বিষয়টি পাল্টে ফেলার জন্য এই সুযোগটি গ্রহণ করেছে।
রোকো, জাপানের পশ্চিমে অবস্থিত কোবেতে বাস করে। ভদ্রমহিলা জানান যে তাঁর পরিবার এই সংক্রান্ত দৈনন্দিন অভ্যাস পাল্টে ফেলেছে [জাপানী ভাষায়], এমনকি যদিও জাপানের এই অংশটি ফুকুশিমার পারমাণবিক চুল্লি বিস্ফোরণে সরাসরি ক্ষতিগ্রস্ত হয়নি।

我が家は、もう常識になってしまったエアコンの設定温度28℃に!
家族はできるだけ1部屋にかたまって動かすエアコンは1台に!
を心がける事と、就寝時間を1時間早めて朝の時間を有効利用しています。
電力消費需要のピーク時午後2時くらい〜はPCやTVなど
電気製品の使用を控えるのも有効な対策になるんですよね。

আমার পরিবার এখন শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ যন্ত্রের তাপ মাত্রা সব সময় ২৮ ডিগ্রী সেন্টিগ্রেডে রাখে!
এছাড়াও আমার এখন সবাই সব সময় চেষ্টা করি এক সাথে এক কামরায় থাকতে, যাতে একটি মাত্র শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ যন্ত্র ব্যবহার হয়।
এগুলো হচ্ছে সেই সমস্ত বিষয় যেসবের উপর আমরা মনোযোগ প্রদান করি, এর সাথে যুক্ত রয়েছে এক ঘণ্টা আগে বিছানায় যাওয়া এবং সকালকে আরো কার্যকর ভাবে ব্যবহার করা।
বেলা ২ টার দিকে কম্পিউটার এবং টিভির মত বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতি ব্যবহার না করা ভালো। কারণ সে সময় বিদ্যুতের চাহিদা সর্বোচ্চ পর্যায়ে থাকে।

“সাৎসুডেন” (সংক্ষেপে বিদ্যুৎ বাঁচাও) প্রতিদিনের একটি শব্দে এবং কিছু কিছু ঘটনায় আলোচিত বিষয়ে পরিণত হয়েছে।

যেমন বলা যায, সাৎসুডেন রন্ধন প্রণালী ইন্টারনেট জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। এদিকে নাগরিকরা কি ভাবে বিদ্যুৎ বাঁচিয়ে উৎকৃষ্ট উপায়ে খাওয়ার যায়, সেই বার্তা সবার কাছে ছড়িয়ে দিচ্ছে।

সিরোসাগি নামক ভদ্রমহিলা তাঁর ব্লগে বেশ কছু পরামর্শ প্রদান করেছে[ জাপানী ভাষায়];

節電レシピとしては冷ややっこや納豆、佃煮、
梅干し、海苔、漬物、缶づめ、ハム、かまぼこなど
電気だけでなくガスも使わずささっと手早く
食べられるものを多く使うようにしています。

加熱するものがあるとどうしても室温が上がり
暑くなるので火を加えず美味しく頂けるものが
あると節電だけでなく涼しく過ごせ良いなと
思います。

お刺身などもそのままお料理せずに食べられて
節電メニューの代表的なものかもしれません。

সাৎসুডেন রন্ধণপ্রণালীর ক্ষেত্রে, আমি বেশ কিছু উপাদান ব্যবহার করি যেমন, টোফু, সয়াতে খাবার সিদ্ধ করা, উমেবেশির আচার (সংরক্ষিত তাল জাতীয় ফল), সিউইডস (সমুদ্র শৈবাল), আঁচার, টিনজাত খাদ্য, শূকরের মাংস, কেটে টুকরো টুকরো করা মাছ, ইত্যাদি। কারণ এসব রান্না করতে বিদ্যুৎ বা গ্যাসের প্রয়োজন নেই, আর এ সব দ্রুত খাওয়া যায়।

যদি আপনি রান্না করতে হয় এমন খাবার ব্যবহার করেন তাহলে অবশ্যই ঘরের তাপমাত্রা বেড়ে এবং আপনি গরম অনুভব করতে থাকবেন, যার ফলে বলা যায় তাজা খাবার খাওয়া হয়, তাহলে তা বিদ্যুৎ সঞ্চয়ে সাহায্য করবে এবং আমাদেরকে ঠাণ্ডা রাখবে।
সেৎসুডেন এর নিখুঁত এক উদাহরণ হচ্ছে সাসিমি, কারণ আপনি রান্না না করেই এই খাবার খেতে পারেন [কাঁচা মাছ]।

বিদ্যুৎ বাঁচানোর এই প্রবণতা শুরু হয়েছিল গ্রীষ্মের আগে, যে সময় ঘরোয়া এবং বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতি বিক্রির দোকান বিভিন্ন পণ্যের উপর ছাড় দেওয়া শুরু করে, যাতে নাগরিকরা কম বিদ্যুৎ খরচ করার সুবিধা লাভ করে।
ব্লগার বোতা মে মাসে প্রথম সেৎসুডেন যন্ত্র লাভের পর থেকে তাঁর জীবনযাত্রা পাল্টাতে শুরু করেন:

1)電気契約量を40A⇒30Aに変更して、電気使用量の上限を強制的に下げた。
2)電気消費量の多いダウンライトとクリプトン球を使用した照明器具の使用をやめて、使用頻度の高いリビングは蛍光灯に切り替えた。(LEDはまだ高いのであきらめた)

১) আমি ইলেকট্রিক কোম্পানীর সাথে চুক্তি পাল্টে ৪০ এ্যাম্পায়ারের বদলে ৩০ এ্যাম্পায়ারের জিনিষ নিয়ে আসি। এর উদ্দেশ্য ছিল আমি যে যন্ত্র ব্যবহার করব তা যেন বিদ্যুৎ ব্যবহারের পরিমাণ কমিয়ে দেয়।
২) আমি সেই সমস্ত বাল্ব ব্যবহার বন্ধ করে দিলাম যে সব বাল্বে অনেক বেশী বিদ্যুৎ লাগে, যেমন ডাউন লাইট এবং ক্রিপ্টন বাল্ব। (লেড বা সিসার দ্বারা তৈরি বাতি এখনো অনেক ব্যায়বহুল, যার ফলে আমার পক্ষে এখনই তা ব্যবহার করা সম্ভব নয়)।

[...]

③東京電力「電気のシェイプアップカルテ」に申し込んで、月次で電気使用量を点検
④真夏に備えて緑のカーテンを準備
今年は節電対策としてゴーヤやアサガオを栽培する家庭が多いようで、どこのホームセンターでも売り切れだ。

৩) আমি টোকিও ইলেকট্রিক কোম্পানীর কাছে “ বিদ্যুৎ ব্যবহার তালিকা” (ইলেকট্রিক শেপ আপ চার্ট) -এর জন্য দরখাস্ত করছি, যাতে আমি প্রতি মাসে কি পরিমাণ বিদ্যুৎ ব্যবহার করছি তা যাচাই করতে পারি।
৪) যেহেতু আমি গরমের উষ্ণতার জন্য প্রস্তুত হচ্ছি, সে কারণে আমি এক সবুজ বেষ্টনী তৈরি করেছি।
এই বছর অনেক পরিবার করলা (বিটার মেলন) কিংবা মর্নিং গ্লোরী নামক ফুলের চাষ করছে যাতে ছায়া সৃষ্টি করা যায়। যার ফলে এখন দোকানে আর কেউ যায় না।

গোয়া বা করলা লতার আচ্ছাদন। ছবি হিদেতসুগু তোনামুরার সিসি বাই-এনসি ২.০

①7月度の節電の取り組み LED化以外はほとんど節電の余地がなくなってきたが、7月9日の梅雨明け以来、急に日差しが強まってきたため、窓に断熱シートを貼って室温の上昇を抑えることにした。ただしこのシートによる断熱効果がいかほどのものかは分からない。

১) জুলাই-এ আমি সাধারণ বাতির বদলে লেড বা সিসার বাতি ব্যবহার করতে সক্ষম হব। তবে বর্ষাকালের পরে যখন সুর্য আরো উত্তাপ ছড়াতে শুরু করবে তখন আমি তাপ প্রতিরোধী আচ্ছাদন ব্যবহার করতে শুরু করব, কারণ বাড়তি উত্তাপ রোধ করা হচ্ছে আমার লক্ষ্য। তবে আমি নিশ্চিত নই এই আচ্ছাদন কতটা কার্যকর হবে।

তাপ প্রতিরোধী আচ্ছাদন। ছবি ওয়াইটিও-এর। সিসি বাই ২.০

এখনো সন্দেহ রয়ে গেছে বিদ্যুৎ সঞ্চয়ের এই সমস্ত ছোট ছোট অভ্যাস আদৌও কোন পার্থক্য গড়ে দেবে কিনা। @কোচশুকি নামের নাগরিক গোষ্ঠী গর্বিত যে তাদের প্রচেষ্টা সফল হয়েছে।

@coachsuki 電気使用量のお知らせがきた~!今月分は昨年と比べ31%減少してますって\(^o^)/ 家中の電球を変えたのと冷風機使用と冷蔵庫カーテンの結果だな♩ちゃんと節電出来てるわ(o^^o)

আমি এখন কি পরিমাণ বিদ্যুৎ খরচ করছি, তার তালিকা পেয়ে গেছি! এই মাসে আমি গত বছরের একই মাসের তুলনায় ৩১ শতাংশ কম বিদ্যুৎ খরচ করেছি। \(^o^)। সম্ভবত বিষয়টি এই বাস্তবতার উপর নির্ভর করছে যে আমি ঘরের বাতিগুলোকে বদলে দিয়েছিলাম, এছাড়াও এখন আমি বৈদ্যুতিক পাখা এবং “শীতল আচ্ছাদন” ব্যবহার করছি। কাজে আমি প্রকৃতপক্ষে বিদ্যুৎ বাঁচাতে সক্ষম হয়েছি।

এই প্রবন্ধটি জাপানের ভূমিকম্পের উপর করা আমাদের বিশেষ কাভারেজের অংশ

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .


বিশ্বের অঞ্চলসমূহ

দেশ

ভাষা

বিশেষ টপিক

লেখাটির সাথে আছে