বন্ধ করুন

গ্লোবাল ভয়েসেসকে শক্তিশালী করতে আমাদের সহায়তা করুন

আমরা ১৬৭টি দেশের উপর রিপোর্ট করি। আমরা ৩৫টি ভাষায় অনুবাদ করি। আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস।

প্রায় ৮০০ এর বেশী গ্লোবাল ভয়েসেস এর লেখক একসাথে কাজ করছে আপনার কাছে অজানা সব গল্প তুলে ধরতে। কিন্তু আমাদের পক্ষে একা সব করা কঠিন। আমাদের অনেকেই স্বেচ্ছাসেবক হলেও আমাদের সম্পাদক, প্রযুক্তি এবং অ্যাডভোকেসী প্রকল্প ও সামাজিক অনুষ্ঠানের ব্যয়ভারের মেটানোর জন্যে আপনাদের সাহায্য প্রয়োজন।

আমাদের সহায়তা করুন এখানে ক্লিক করে: »
GlobalVoices পাওয়া যাবে আরও জানুন »

রাজাকে অপমান করার দায়ে থাই একটিভিস্ট সম্পাদকের ১১ বছরের কারাদণ্ড

রাজাকে অপমান (লে ম্যাজস্টিক) করার মত অপরাধে শ্রম অধিকার কর্মী এবং ভয়েস অফ টাকসিন-এর সম্পাদক সোমইয়ত প্রুয়েত সাকাসেমুসাকে এক অপরাধ আদালত-এর ১১ বছরের কারাদণ্ড প্রদানের ঘটনায় থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাংককের এক জনাকীর্ণ আদালত কক্ষে উপস্থিত নাগরিকরা বিস্ময়ে হতবাক হয়ে পড়ে। যে ধারায় মামলা করা হয়েছে সেটি কেবল বিস্ময়ের সৃষ্টি করেনি, একই সাথে অপরাধের শাস্তি মাত্রাও বিস্ময়ের সৃষ্টি করে, বিশেষ করে যখন রাজ পরিবারকে অপমান করার সর্বোচ্চ শাস্তি ১৫ বছরের কারাদণ্ড। এর আগে এই আইনে যাদের বিচার হয়েছে, তাদের শাস্তির মেয়াদ ছিল স্বল্প। তবে সোমিইয়ত এতটা সৌভাগ্যবান ছিলেন না, দুটি অপরাধ বিবেচনায় তাকে তার প্রতিটি অপরাধের ক্ষেত্রে পাঁচ বছর করে কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে, সাথে তা আরো এক বছরের কারাদণ্ড প্রদান করা হয় যা ২০০৯ সালে তার স্থগিত কারাদণ্ডের কারণে [ভিন্ন এক অভিযোগে] উক্ত এক বছরের শাস্তি বাতিল করা হয়।

বিচারে ১১ বছরের কারাদণ্ড হবার পর অপরাধ আদালত থেকে সোমইয়তকে পুলিশ প্রহরায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। ছবি লিলিয়ান সুয়াওয়ানরুম্পাহ-এর। কপিরাইট@ডেমোটিক্স-এর (১/২৩/২০১৩)

সোমইয়তের জন্য বিষয়টি আসলে হতাশার, সংবাদে বলা হয়েছে সে আশাবাদী ছিল তাকে অপরাধী সাব্যস্ত করা হবে না, কারণ সে বিশ্বাস করে যে সে কোন অপরাধ করেনি। প্রচাতাই সংবাদ প্রদান করেছে যে যে কারাগারে সোমইয়ত বিগত ২০ মাস আটক রয়েছে, তার সেখানকার বন্ধুরা উন্মোচন করেছে যে সোমইয়ত আশা করেছিল যে আদালত ন্যায়বিচার প্রদান করবে এবং তারা সঠিক কাজটি করবে। তার আইনজীবীরা এই রায়ের বিরুদ্ধে দরখাস্ত করবে এবং তার জামানত লাভের উপায় অনুসন্ধান করবে।

সোমইয়তের আশাবাদ তৈরী হয়েছিল তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগের প্রকৃতির কারণে। সোমইয়ত একটি রাজনৈতিক পত্রিকা ভয়েস অফ টাকসিন–এর (যা ২০১০ সালে নিষিদ্ধ হয়ে যায়) সম্পাদক, যা ২০১০ সালে দুটি প্রবন্ধ প্রকাশ করেছিল, বলা হচ্ছে এই দুটি প্রবন্ধে লে ম্যাজেস্টিক আইন ভঙ্গ করা হয়েছে। ২০১১ সালে আনুষ্ঠানিক ভাবে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়। ১২ বার তার জামিনের আবেদন নাকচ করা হয়। অবশেষে ২৩ জানুয়ারি,২০১৩ তারিখে তার বিরুদ্ধে রায় প্রদান করা হয়। এই দুটি প্রবন্ধ ছদ্মনামে ছাপা হয়েছিল এবং এতে রাজতন্ত্রের কথা সরাসরি উল্লেখ করা হয়নি। তবে, আদালত বিশ্বাস করে যে এই প্রবন্ধটি কাকে উল্লেখ করছে তা পরিষ্কার এবং একজন ঊর্ধ্বতন সম্পাদক হিসেবে সোমইয়তের অবশ্যই তাদের প্রকাশনার অতিরিক্ত বিষয় সম্বন্ধে ভালাভাবে জানা উচিত, আর সে কোন না কোন ভাবে সে তার সাথে সম্পৃক্ত।

“আদালতের বিচারিক কার্যক্রমে এই বিষয়টি প্রদর্শিত হচ্ছে, সোমইয়াত যে প্রবন্ধ প্রকাশ করেছে, তা রাজ পরিবার সম্বন্ধে একাডেমিক দৃষ্টিভঙ্গি প্রকাশ করে না। লেখার বৈশিষ্ট্যে এই প্রবন্ধ রাজাকে অপমান করেছে এবং তার ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করেছে। বিচারক থায়ি এই কথা বলেন

থাইল্যান্ডের নাগিরক অধিকার আন্দোলন, আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম, এবং আন্তর্জাতিক অধিকার আন্দোলন সংস্থাসমূহ নানাভাবে এই বিচারের সমালোচনা করছে। তবে থাইল্যান্ডের অভ্যন্তরে মূল ধারার সংবাদপত্রসমূহ অনেক বিনম্রভাবে এই সংবাদ প্রদান করেছে।

সোমাইয়ত-এর শুনানিতে থাই নেটনাগরিকদের প্রতিক্রিয়া ছিল তার আগের মামলার মতই বিভিক্ত। কেউ কেউ যুক্তি প্রদান করেছে সোমইয়াত তার উপযুক্ত শাস্তি লাভ করেছে কারণ সে ক্রমাগত আইনের ১১২ এর বিরুদ্ধে কথা বলে গেছে।

ব্যাংক পোস্টের ওয়েব বোর্ডে মিত্রাপা লিখেছে:

সে জামিনে মুক্তিলাভ করেছিল। সে সঠিকভাবে জানত যে মুখ খোলা রাখার ঝুঁকি কি। বর্তমানে যে আইন প্রচলিত আছে তা পছন্দ করেন বা না করেন, তার ভিত্তিতে আপনাকে আপনার অবস্থান বেছে নিতে হবে। আইনের বিরুদ্ধে কথা বলে আপনি তা পাল্টে ফেলতে পারবেন না।

পলিডোনাট এর সাথে যোগ করেছে:

থাইল্যান্ড একটি ভালো রাষ্ট্র। আর বাজে লোকেরা আমাদের দেশ, প্রতিষ্ঠানসমূহকে অপমান করছে, আর যারা বাজে ধরনের অপরাধ করে তাদের অবশ্যই দীর্ঘ সময়ের জন্য কারাবাস করতে হবে।

ম্যানেজারের ওয়েব বোর্ডে খোন তাহি হুয়া জাই সিং লিখেছে :

যারা রাজতন্ত্র বিরোধী আন্দোলনের সাথে সম্পৃক্ত–সেই আপনারা যদি মনে করেন যে রাজতন্ত্রের কারণে থাইল্যান্ড বসবাসের উপযোগী নয়, তাহলে আমাদের এই প্রিয় স্বদেশ ত্যাগ করুন, যা কিনা আমাদের রাজাকে শ্রদ্ধা করে।

অথবা যদি আপনারা বিশ্বাস করেন যে আপনরা জনাব… এর স্বীকারোক্তির দ্বারা বোকা হতে চান…তাহলে এখন সময় এসেছে নিজেদের মানসিকতার পরিবর্তন করার, আপনার পরিবার এবং সমাজের পক্ষে আপনার কৃতকর্মকে ক্ষমা করাবার সময় এখনো ফুরিয়ে যায়নি। আপনার পথ আপনাকেই বেছে নিতে হবে।

এর বিপরীতে, থাইল্যান্ড এবং থাইল্যান্ডের বাইরের অধিকার আন্দোলন সংস্থাগুলো এই বিচারের রায়ের নিন্দা করেছে এবং এদের কেউ কেউ যুক্তি প্রদান করেছে যে সোমইয়াতকে এত কঠোর শাস্তি প্রদানের কারণ হচ্ছে সে হচ্ছে এমন এক একটিভিস্ট যে আইনের ১১২ নাম্বার ধারা সংস্কারের পক্ষে সোচ্চার এক ব্যক্তি।

অন্যদের সাথে ভিন্ন মত পোষন করা এক ব্যাক্তির জন্য ১০ বছর জন্য কারাদণ্ড অনেক বেশী কঠোর এক শাস্তি। ভিন্নমত এবং মূল্যবোধের প্রতি শ্রদ্ধা পোষন করা এমন এক বিষয় যা আমাদের সমাজকে শিখতে হবে।,” থাই একটিভিস্টরা এই যুক্তি প্রদান করেছে

পরচাটক ওয়েব বোর্ডে লাক চাওয়ান থাই লিখেছে :

অপরাধে দোষী সাব্যস্ত হওয়া সোমইয়াত মুক্তচিন্তার কারণে কারাবন্দী হলেন। এটা খুব স্বাভাবিক একটা ঘটনা যে কোন বিষয়ে ভিন্ন ভিন্ন মত থাকাটাই স্বাভাবিক এবং যে সমাজে জনতার মত ভিন্ন ভিন্ন, সেখানে একজনের বেঁচে থাকার অধিকার রয়েছে।

যদিও তা বিস্ময়কর ছিল না, কিন্তু তারপরেও সবচেয়ে বড় হতাশার জায়গাটা ছিল এই বিষয়ে ইংলাক সরকারের কোন প্রতিক্রিয়ার না থাকা। সবচেয়ে বড় কথা এই রায় ছিল থাকসিন-পন্থী ম্যাগাজিন, যা ক্রমে রেড শার্টের (প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী থাকসিনের ঘনিষ্ঠ মিত্র, যে থাকসিনের বোন হচ্ছেন ইংলাক) প্রকাশনায় রূপান্তরিত হয়, সেই রেড পাওয়ার-এর বিরুদ্ধে। ইউডিডির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ইউডিডি থিডা থাভোরনেসাথ নিজে সোমইয়াতের বিচারের সময় আদালতে উপস্থিত ছিলেন এবং বেশ কিছু রেডশার্ট দলীয় কর্মকাণ্ডের আয়োজন করে সোমইয়তকে মুক্ত কর নামক প্রচারণাকে সমর্থন করার জন্য। তারপরেও, যাদের নিয়ে অন্যতম আশঙ্কা ছিল, সেই শাসক পুহু থাই নামক দলটির এই মামলায় হস্তক্ষেপ করার কোন ইচ্ছে দেখা যাচ্ছে না। যেমনটা অধ্যাপক ডানকান ম্যাককার্গো যুক্তি প্রদান করেন :

ইংলাক সিনাওয়াত্রা নিজের পদে অধিষ্ঠিত থাকার জন্য ইচ্ছাকৃত ভাবে এক ভারসাম্যপূর্ণ কার্যক্রম প্রদর্শন করছেন–এবং এই কার্যক্রমের মাধ্যমে তিনি দেশটির রক্ষণশীল প্রতিষ্ঠানগুলোকে নিজের পক্ষে রাখলেন, যার মধ্যে রাজপ্রাসাদ, বিচার বিভাগ এবং সামরিক বাহিনী রয়েছে।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .


বিশ্বের অঞ্চলসমূহ

দেশ

ভাষা

বিশেষ টপিক

লেখাটির সাথে আছে