বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

ধর্মীয় স্বাধীনতা উপভোগ করার জন্য ক্রিসমাসে চীনে আসুন!

সারা চীন জুড়ে চীনা জনগণ কিভাবে তাঁদের ছুটির দিনগুলো উদযাপন করে সে বিষয়টি পর্যবেক্ষনের জন্য আন্তর্জাতিক চীনা পর্যবেক্ষকদের ক্রিসমাসের প্রাক্কালে চীন সফরের আহবান [ঝং ওয়েন] জানিয়ে চীনা কম্যুনিস্ট পার্টির মুখপাত্র গ্লোবাল টিমস এক সম্পাদকীয় প্রকাশ করে।

চীনে কোন ধর্মীয় স্বাধীনতা নেই এ ধরণের গুরুতর সমালোচনার প্রতিক্রিয়ার অংশ হিসেবে এ সম্পাদকীয় প্রকাশ করা হয়। চীনা এইডস রিপোর্ট অনুসারে ২০১১ সালে ধর্মীয় মিছিলে অংশগ্রহণের সঙ্গে সম্পর্কিত বিবেচনায় কমপক্ষে ১২৮৯ জনকে চীনা কর্তৃপক্ষ গ্রেফতার করে।

গ্লোবাল টাইমসের এ বলিষ্ঠ সম্পাদকীয়র পরেও নেটনাগরিকেরা প্রতিবেদনে জানায় যে এ বছর ক্রিসমাসে কিছু গীর্জার প্রবেশ পথে বাধা প্রদান করা হয়েছে। এছাড়া গ্লোবাল টাইমস কর্তৃক পর্যবেক্ষকদের জিনজিয়াং অঞ্চলে মুসলিম উৎসব পর্যবেক্ষনের জন্য সম্পাদকীয়তে যে আহ্বান জানিয়েছে সে বিষয়ে চীনের সংখ্যালঘু উইঘুর মুসলিম সম্প্রদায় শঙ্কিত।

চীনে ব্যয়ের জন্য ক্রিসমাস হল ছুটির দিন। ছবি- ফ্লিকার ব্যবহারকারী মার্ক ভ্যান দের চিজস সি সিঃ বাই- এসএ।

ব্যয়ের স্বাধীনতা ধর্মীয় স্বাধীনতা নয়

হ্রাসকৃত ধর্মীয় স্বাধীনতা থেকে অসাম্প্রদায়িক ক্রিসমাস উদযাপনের বিষয়ে গ্লোবাল টাইমসের সম্পাদকীয়ের ভ্রান্ত ধারনাকে অধিকাংশ নেট নাগরিক দ্রুতই বুঝতে পেরেছেন। চীনের মাইক্রোব্লগিং সাইট সিনা উইবোর কিছু তাৎক্ষনিক প্রতিক্রিয়ার নিউজ থ্রেড নিচে তুলে ধরা হলঃ

铭格格-洛桑卓玛:在胡编无知狭隘的眼里,商业炒作等同于宗教信仰自由,容许进教堂寺庙道观等地方参观等同于宗教信仰自由。。。

铭格格-洛桑卓玛:গ্লোবাল টাইমস এর সম্পাদক হু শিজুন এর সংকীর্ণ দৃষ্টিতে বানিজ্যিক উৎসব ধর্মীয় স্বাধীনতার সমার্থক, গির্জা ও মন্দিরে পর্যটকদের ভ্রমন ধর্মীয় স্বাধীনতার সমার্থক…

彭勇-AARON:这是消费自由!别扯信仰自由。。。

彭勇-আরন:এটা ভোগের স্বাধীনতা, ধর্মীয় স্বাধীনতার সাথে একে যুক্ত করবেন না।

গীর্জাগুলো অবরুদ্ধ

মজার বিষয় হল ক্রিসমাসের আগে নেট নাগরিকেরা কিছু কিছু গীর্জা অবরুদ্ধ ও কিছু কিছু গীর্জা তালাবদ্ধ অবস্থায় পেয়েছেন। ২৪ ডিসেম্বর, ২০১২ তারিখে তিয়ানজিন শহর থেকে দেসি সেলেস্টিয়াল রিপোর্ট করেন [ঝং ওয়েন]:

无事去滨江道和西开教堂转了一圈儿,节日气氛相当浓厚。去参观教堂的所有入口都被封了,最后定向越野似的循着警察贴在电线杆商场柱子和柜台上的A4纸指示才找到一个隐秘的特别入口,中间警察至少有5重把关

উৎসবের আমেজ তীব্র। আমি গাড়ি যোগে বিং জিয়াং সড়কের নিকটবর্তী জিকাই গীর্জায় গেলাম। গীর্জায় প্রবেশের সকল প্রবেশ পথ অবরুদ্ধ। ঘটনা চক্রে বৈদ্যুতিক খুঁটির গায়ে  সাঁটা A4 সাইজের  কাগজে গোপন প্রবেশ পথের নির্দেশনা পেলাম। রাস্তায় কম করে হলেও ৫ টা পুলিশী প্রতিবন্ধকতা ছিল।

উইবো ব্যবহারকারী লিগাগির আপলোড করা ছবিতে দেখা যাচ্ছে জিয়ান এ ক্রিসমাসের দিন গীর্জা অবরুদ্ধ।

শানঝি প্রদেশের জিয়ান শহরে ২৫ ডিসেম্বর তারিখে ব্যাপক সংখ্যক খ্রিস্টান গীর্জা অবরোধের প্রতিবাদে বিক্ষোভ করে।পরিস্থিতি ব্যখ্যার জন্য লিগাগি কিছু ছবি আপলোড করেনঃ

圣诞节被封了门的基督教堂,被堵了的道路,全球狂欢日,这些人却在寒夜上演着席地痛哭的悲剧?是何缘由?

[ছবিতে দেখা যাচ্ছে] গীর্জার প্রবেশ পথ তালাবদ্ধ; সড়ক অবরুদ্ধ।সারা বিশ্ব যখন উদযাপনে ব্যস্ত তখন এখানে জনগণ মাটিতে বসে আছে, ঠান্ডা শীতের রাতে কাঁদছে? কেন?

ডার্কমুমু লিয়িফরেভারের ছবি রি-পোস্ট করেন এবং এ রি পোস্টে চীনে ধর্মীয় স্বাধীনতার বাস্তবতা নিয়ে কিছু মন্তব্য লক্ষ্য করা যায়ঃ

天行者68th:凡是有人聚集的地方,凡是不是他们的恶毒谎言能够辖制到的地方,都是禁地。

天行者৬৮:স্থানে জনগন সমবেত হয়, সেখানে  তাঁরা [কর্তৃপক্ষের]তঞ্চকতা দ্বারা শাসিত নয়, এখন এটা তাঁদের নিষিদ্ধ এলাকা।

染香姐姐:这些二逼,把阳光下的教堂封了,是让人去信邪教吗??黑暗滋生一切罪恶,如果中国能够公开传教,根本就不会把好好的宗教越信越邪。

染香姐姐:তাঁরা আসলে বোকা। প্রকাশ্য দিবালোকে গীর্জা অবরুদ্ধ করার মধ্য দিয়ে তাঁরা জনগণকে শয়তানের উপর বিশ্বাস স্থাপনে বাধ্য করছে। অন্ধকারে যখন কার্যক্রম পরিচালিত হবে তখন পাপ এবং অপরাধ সক্রিয় হবে।চীন যদি প্রকাশ্যে ধর্ম প্রচারের অনুমতি দেয় তাহলে তাঁদের ধর্মীয় কার্যক্রমকে কাল্টে (cult)পরিণত করতে দেওয়া উচিত হবে না।

西葫芦馅儿:在这个国度信仰是一种奢侈。

西葫芦馅儿:এ দেশে কোন কিছু বিশ্বাস করা এক ধরণের বিলাসিতা।

实习奋青:在这个地方,改信钱吧。

实习奋青:এ দেশে টাকার উপর বিশ্বাস রাখাই শ্রেয়।

গৃহ গীর্জা শয়তানের কাল্ট

চীনে প্রোটোট্যান্টদের সকল কার্যক্রম থ্রি- সেলফ প্যাট্রিওটিক মুভমেন্ট অব দি প্রোটোস্ট্যান্ট চার্চেস ইন চায়না দ্বারা পরিচালিত হয়। এ সংগঠনটি চীনা কম্যুনিস্ট পার্টির (সি সি পি)নেতৃত্বে পরিচালিত। অন্যান্য খ্রিস্টান সম্প্রদায় গৃহ গির্জার আদলে কার্যক্রম পরিচালনা করে। এ ধরণের কার্যক্রম অবৈধ বলে বিবেচিত এবং যে কোন সময় বন্ধ হয়ে যেতে পারে। খ্রিস্টান চক্রের বাইরের লোকজন থ্রি-সেলফ চার্চের বাইরের ধর্মীয় কার্যক্রম শয়তানের কাল্ট।詹姆-兰尼斯特 [ঝং ওয়েন] এর নিচের মন্তব্যের সাথে চীনের অনেকেই একমতঃ

这条新闻我真心不是很相信,教堂都是教产,而且国内都是三自爱的教产,政府自己封自己?被封的是家庭教会的可能性极大——如果真的是家庭教会,我预先说一句去你麻痹的臭邪教!

আমি এ সংবাদটি বিশ্বাস করি না [জিয়ানে গীর্জা অবরুদ্ধ]। সকল গীর্জাই গীর্জার সম্পত্তি এবং চীনে এ সব গীর্জার স্বত্তাধিকারী হল থ্রি- সেলফ প্যাট্রয়েটিক চার্চ। সরকার কেন তাঁর নিজের শাখাগুলোকে বন্ধ করবে? সম্ভবতঃ অবরুদ্ধ গীর্জাটি গৃহ গীর্জা। সেক্ষেত্রে আমি বলবো “গোল্লায় যাও শয়তানের দল!”

মুসলিম উৎসবে পর্যবেক্ষকদের আমন্ত্রণ

চীনের উইঘুর সম্প্রদায় গ্লোবাল টাইমসের সম্পাদকীয়কে সমস্যাপূর্ণ বলে মনে করে। উইঘুরবিজ.নেট গ্লোবাল টাইমসকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে মুসলিম উৎসবে পর্যবেক্ষকদের আমন্ত্রণ জানিয়ে মন্তব্য প্রকাশ করেঃ

《环球时报》的这篇评论漏洞百出,它把中国年轻人“过洋节”的消费文化移花接木地理解成了基督教文化在中国的自由发展。如果不是节日效应刺激效应,官方还会这么网开一面吗?另外,基督徒人数增加的首要原因是人们对国家核心价值观的失望之后转投宗教的怀抱以此寻求安慰呢,还是确如文章所说的是中国政府的开明政策呢?这需要系统的论证。
如果在开斋节或宰牲节等穆斯林传统节日来临之际,西方媒体指责中国政府压制穆斯林的宗教自由时,《环球时报》是否还敢发布一篇题为《怀疑宗教自由请来疆过节》的文章呢?

দি গ্লোবাল টাইমসের সম্পাদকীয়টি কুযুক্তিতে পরিপূর্ণ। এটা নতুন প্রজন্মকে চীনা জনগণের ভোগের “পশ্চিমা উৎসব” কে চীনে খ্রিষ্টীয় সাংস্কৃতিক স্বাধীনতার উদাহরণ হিসেবে উপস্থাপন করতে চাইছে। ব্যয় করার জন্য ছুটির দিন না হলে কি চীনা সরকার তাঁদের নিয়ন্ত্রণ শিথিল করতো? চীনে খ্রিস্টান জনগণ বেড়ে যাওয়ার মূল কারন হল এ দেশের মৌলিক মূল্যবোধের উপর আস্থা হারানোর প্রতিক্রিয়া। জনগণ ধর্মের কাছে স্বস্তি পেতে চায়। সরকারের উন্মুক্ত নীতি কি এ বিষয়ে কিছু করেছে? আমাদের এ বিষয়ে নিয়মতান্ত্রিক বিতর্ক দরকার। যদি পশ্চিমা প্রচার   মাধ্যম চীনের মুসলিম ধর্মীয় কার্যক্রম  ঈদ উল ফিতর এবং ঈদ উল আযহার প্রাক্কালে চীনে মুসলিম দমনের সমালোচনা করে তাহলে কি গ্লোবাল টাইমস “ চীনে ধর্মীয় স্বাধীনতায় সন্দেহবাদ, দয়া করে উৎসব দেখার জন্য জিনজিয়ানে যান” শিরোনামে প্রতিবেদন প্রকাশে সাহসী হবে?

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .