বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

সিরিয়াঃ টুইটারে দলত্যাগে মধ্যস্ততা

নিচের রিপোর্ট অনুযায়ী প্রাক্তন সিরিয় মুখপাত্র জিহাদ মাকদিসি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পালিয়ে গেছেন। ২৫ ডিসেম্বর তারিখে সক্রিয় কর্মী রামি জারাহ, যিনি আলেকজান্ডার পেজ নামেও পরিচিত তিনি কিছু ব্যক্তিগত টুইটার বার্তা প্রকাশ করেছেন। এই টুইটার বার্তাগুলোতে দেখা যাচ্ছে, মাকদিসি গত কয়েক মাস ধরে তাঁর সাথে যোগাযোগ রেখে যাচ্ছিলেন। সম্ভবত এ কারণে টুইটার ব্যবহারকারিরা এর নাম দিয়েছেন “ইতিহাসের প্রথম দলত্যাগের আলোচনা।”

২৫ ডিসেম্বর তারিখে ৪৭-তম টুইটঃ

আমি মনে করি @আলেকজান্ডারপেজএসওয়াই এই মাত্র ইতিহাসের প্রথম দলত্যাগের আলোচনার অংশ হলেন। @মাকদিসির সাথে তাঁর ডিএমগুলোর (টুইটারে সরাসরি বার্তা) স্ক্রিনশটটি খুঁজে দেখুন।

প্রধানমন্ত্রী রিয়াদ হিজাব আগস্টে যখন দেশ ছেড়ে চলে যান তখন থেকে মাকদিসি ছিলেন সিরিয় সরকারের সবচেয়ে বয়োজ্যেষ্ঠ সদস্য। মার্চ ২০১১ তারিখে বিপ্লবের শুরু থেকে এবং প্রকাশ্যে বিক্ষোভকারীদের বিরুদ্ধে, মাকদিসি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও তথ্য মন্ত্রণালয়ের সাথে খুব ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করেছেন। এই দলত্যাগ সেই শাসনতন্ত্রের জন্য আরও একটি বড় আঘাত, যেখানে দেশটি তাঁর নিজ দেশের জনগণের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করছে। রুটির জন্য লাইনে দাঁড়িয়ে অপেক্ষামান সিরিয় লোকদের ওপর সাম্প্রতিক যে মারাত্মক বিমান হামলাটি চালানো হলো তা থেকে আমরা এটাই দেখতে পাই।

জারাহ যে বার্তাগুলো প্রকাশ করেছেন তাতে জুলাই মাসে তাঁর ও মাকদিসির মধ্যকার কথোপকথন দেখা যাচ্ছে। প্রথম দফায় প্রকাশিত কিছু বার্তায় দেখা যাচ্ছে জারাহ নিজেকে একজন সিরিয় নাগরিক হিসেবে নিজেকে পরিচয় দিচ্ছেন। তাঁর পাসপোর্ট ছিনতাই হয়ে গেছে এবং একজন বিদেশী এজেন্ট হিসেবে তিনি অভিযুক্ত হয়েছেন। মাকদিসি উত্তরে বলেছেনঃ

জারাহকে কীভাবে সিরিয়াতে পালিয়ে আসতে হয়েছিল সে কাহিনী তিনি নিচের বার্তাগুলোতে শেয়ার করেছেন এবং মাকদিসির কাছে জানতে চেয়েছেনঃ

 

নিচের ডিএমগুলোতে (টুইটারে সরাসরি বার্তা) জারাহ শুধু একনায়কত্বের বিরুদ্ধে নয় বরং যেকোন বিদেশী শক্তির বিরুদ্ধেই যুদ্ধ করতে চান বলে জানিয়েছেন। যারা দেশের অস্থিরতার সুযোগ নিয়ে লাভবান হতে চায়ঃ

নিচের বার্তাগুলোতে দেখা যাচ্ছে একই ধারাবাহিক বর্ণনা, যা আসাদ প্রশাসন শক্ত হাতে শাসন করার প্রয়োজনীয়তা সমর্থন করতে এবং সবকিছুর উপর কর্তৃত্ব বজায় রাখতে কয়েক দশক ধরে ব্যবহার করে আসছে। অপরদিকে মাকদিসিও জোর দিয়ে বলেছেন, “সহিংসতা থেকে দূরে থাকা ও সংলাপকে সমর্থন করা প্রয়োজন”ঃ

২১ জুলাই তারিখে আরও একটি কথোপকথনে মাকদিসি সিরিয়ার বিরোধীদলের প্রতি তাঁর আস্থাহীনতার কথা বলেছেনঃ

শেষ বার্তাটিতে জারাহ শেয়ার করেছেন, মাকদিসি বলেছেন তিনি তাঁর সুপারিশগুলো বিবেচনা করবেনঃ

গ্লোবাল ভয়েসেস অনলাইনকে জারাহ বলেছেন, মাকদিসির সাথে তাঁর কথোপকথনের অন্য রেকর্ডগুলোও তাঁর কাছে আছে। সাবেক এই মুখপাত্রের ভূমিকা এখন থেকে কেমন হবে? টুইটার ব্যবহারকারিরা এ বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেছেন, তিনি আসাদের কাজ করার পরিবর্তে সিআইএ-র কাজ করছেন। কিনদাকানবার টুইট করেছেনঃ

দ্য গার্ডিয়াননিউজ সিরিয়ার খবর অনুযায়ী, মাকদিসি আসাদের জন্য কাজ করার পরিবর্তে সিআইএ-র জন্য কাজ করতে এখন ওয়াশিংটনে আছেন।

http://www.guardian.co.uk/world/2012/dec/24/syrian-official-us-intelligence-agencies

রামি জারাহ এই বছরের সিজেএফই ইন্টারন্যাশনাল প্রেস ফ্রিডম পুরস্কার বিজয়ী। জিহাদ মাকদিসির সাথে তাঁর বাকি কথোপকথন দেখা যাবে এখানে।

1 টি মন্তব্য

  • আসিফ

    সিরিয়া সরকার যদি নিজ জনগনের সাথে যুদ্ধ করে তাহলে বলুন জনগনের অস্র আসছে কোথা থেকে? কার টাকায় কেনা হচ্ছে অস্র? কেন সিরিয়া আলজেরিয়া, মরক্কো, তিউনিশিয়া চেচেন, পাকিস্তানি মাদকাসক্তরা ধরা পড়ছে? কেন আল কায়দার সাথে জড়িত জঙ্গিরা সিরিয়ায় যুদ্ধ করছে? কেন জর্দানির ন্যাটো ক্যাম্পে সিরিয়ান এবং ভিনদেশি জিহাদিদের প্রশিক্ষন দেয়া হচ্ছে।
    উত্তর আমিই দিচ্ছি। টাকা আসছে সৌদি আরব, কাতার থেকে। অস্র আসছে ন্যাটো এবং তুর্কির তত্তাবধানে। যুদ্ধ করছে বিদেশি পথভ্রম আলকায়দার জিহাদিরা যারা ইওরোপ এবং আমেরিকায় হামলা করেছে বেশ কয়েবার, যাদের বিরুদ্ধে আমেরিক অনন্তকাল জিহাদের ঘোষনা দিয়েছে।
    দুই বছর হয়েগেল সিরিয়ায় যুদ্ধ চলছে। এসব দলত্যাগের মাধ্যমে আজও বাশারকে পরাস্ত করা যায়নি। সুতরাং এসব নগন্য ব্যাপারে আর্টিকেল লিখার পেছনে একটাই উদ্দেশ্য দেখি যা পাঠকের আন্দাজের উপর ছেড়ে দিলাম।

আলোচনায় যোগ দিন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .