বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

বড়দিনে ইয়েমেনে দুটি মার্কিন ড্রোন হামলা

ইয়েমেন থেকে সবাইকে বড়দিনের শুভেচ্ছা! বড়দিনে ইয়েমেনে দুটি ড্রোন হামলা হয়েছে। এতে প্রাণ হারিয়েছে সন্দেহভাজন পাঁচ জঙ্গী। সোমবারে দক্ষিণের শহর আল-বেদায় গাড়িতে ভ্রমণের সময় প্রথম ড্রোন হামলায় দুইজন মারা যায়। সোমবারেই হাদ্রামাউট প্রদেশে দ্বিতীয় ড্রোন হামলায় মারা যায় আরো তিনজন। তারা সে সময়ে মোটরসাইকেলে করে যাচ্ছিল।

ওমর ম্যাশ নামের এক ইয়েমেনি ব্লগার টুইট করেছেন:

@ওমর_ম্যাশ: শুরুটা ছিল বড়দিনের মতোই… ‘মেড ইন ইউএসএ’ লেখা বোমা বৃষ্টির মতো এসে পড়ে আরবের সবচেয়ে প্রাচীন সভ্যতা ইয়েমেনের বুকে। #ইয়েমেন

@ওমর_ম্যাশ: আমেরিকার মানুষেরা তাদের পরিবার পরিজন নিয়ে বড়দিন উদযাপন করছে। তাদের জানা দরকার, তাদের সরকার ইয়েমেনের মানুষজনের ওপর ড্রোন থেকে বোমা ফেলছে। # নো ড্রোন

@ওমর_ম্যাশ: তারা আমাদের বিপ্লবকে ডাকাতি করেছে। তারা তাদের স্থিতিশীলতা আমাদের ওপর চাপিয়ে দিয়েছে। তারা আমাদের আকাশে বৃষ্টির বদলে ড্রোন দিয়েছে। #ইয়েমেন থেকে বড়দিনের শুভেচ্ছা!

ইয়েমেনি অ্যাকটিভিস্ট ইব্রাহিম মোথানা মন্তব্য করেছেন:

@আইমোথানাইয়েমেন: আজকে ইয়েমেনে দুইবার ড্রোন হামলা হয়েছে। আমরা কি এটাকে বড়দিনের উপহার হিসেবে বিবেচনা করতে পারি?

US Air Force General Atomics MQ-1 Predator Unmanned Aerial Vehicle (UAV). Image by Flickr user james_gordon_los_angeles (CC BY-NC 2.0)

মার্কিন বিমান বাহিনীর জেনারেল অ্যাটোমিক্স এমকিউ-১ নামের মানুষবিহীন বিমান। ছবিটি নেয়া হয়েছে ফ্লিকার ব্যবহারকারী জেমস_গর্ডন_লস_অ্যাঞ্জেল থেকে (সিসি বিওয়াই-এনসি ২.০)

গার্ডিয়ানের কলামিস্ট এবং ব্লগার গ্লেন গ্রিনওয়াল্ড উত্তরে বলেছেন:

@জিগ্রিনওয়াল্ড: উপহারটা যেইসেই নয়: এসেছে নোবেল পুরস্কার জয়ীর কাছ থেকে। আরটি@আইমোথানাইয়েমেন: আজকে ইয়েমেনে দুইবার ড্রোন হামলা হয়েছে। আমরা কি এটাকে বড়দিনের উপহার হিসেবে বিবেচনা করতে পারি?

ড. কোয়াইশ ঘানেম ওয়াশিংটন পোস্টের একটি লেখায় লিংকে মন্তব্য করে টুইট করেছেন

@ডায়ালগ_৯৭৯_এফএম: মার্কিন ড্রোন যখন সাধারণ মানুষকে মারছে তখন কোথায় সালেহ এবং তার পররাষ্ট্রমন্ত্রী অথবা হাদি এবং তার পররাষ্ট্রমন্ত্রী। ইয়েমেন সরকার এটা গোপন করার চেষ্টার করছে:

http://www.washingtonpost.com/world/middle_east/when-us-drones-kill-civilians-yemens-government-tries-to-conceal-it/2012/12/24/bd4d7ac2-486d-11e2-8af9-9b50cb4605a7_story.html … #ড্রোন

স্যাম ওয়াদ্দা তার ফেসবুক পেজে মন্তব্য করেছেন:

পশ্চিমে সান্তাক্লজ যখন উপহার দিচ্ছে, ওবামা তখন ইয়েমেনে বিমান হামলার জন্য ড্রোন পাঠালেন। ইয়েমেনের মাটিতে আজকেও ড্রোন হামলা হলো!

আমি জোরালোভাবেই বিশ্বাস করি, এটা শুধু মার্কিন প্রশাসনের সমস্যা নয়, আমাদের সরকারেরও ড্রোন হামলার পেছনে অনুমোদন রয়েছে!

২০১১ সালে পাকিস্তানে ড্রোন হামলা কমেছে ৪১%। আর ২০১২ সালে কমেছে ৪০%। কারণ পাকিস্তান সরকার তাদেরকে হামলা চালাতে আর অনুমোদন দেয়নি। অন্যদিকে ২০১১ সালে ইয়েমেনে ড্রোন হামলা বেড়েছে ২৪০%। আর ২০১২ সালে বেড়েছে ২৫০%। এটা বেড়েছে কারণ, আমাদের রাষ্ট্রপতি তাদেরকে হামলা চালানোর অনুমতি দিচ্ছেন!

ইয়েমেনের জনগণ এই ড্রোন হামলা এবং রক্তপাতের বিরোধী হলেও আমাদের সরকারের অনুমোদন করার কারণে ওবামা ক্লুজ ২০১৩ সালে আরো বেশি করে ড্রোন হামলা চালাবেন!

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কারণে নয়, আমাদের নেতৃত্বের কারণে আমরা ঘটনার শিকার হচ্ছি!

ক্রমাগত ড্রোন হামলা চালানোর কারণে ওবামা ও মার্কিন প্রশাসন এবং ইয়েমেন সরকারের অবরোধের বিরুদ্ধে ইয়েমেনের মানুষ অনেক লেখালিখি, টুইট এবং ব্লগ লিখেছেন। এই অবিচারের জন্য কাকে বেশি দায়ী করা যায়?

ইয়েমেনে মার্কিন ড্রোন হামলা নিয়ে অনেকগুলো পোস্টের সিরিজের এটি একটি পোস্ট। খুব দু:খের সাথে জানাচ্ছি বোধহয় এটাই শেষ নয়।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .