বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

জাম্বিয়া: রাষ্ট্রপতির অস্তিত্বহীন “বিদ্রোহীদের” হত্যার নির্দেশ

এই পোস্টটি আমাদের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক ও নিরাপত্তা  সংক্রান্ত কভারেজের অংশ।

President Michael Sata

জাম্বিয়ার কমান্ডার-ইন-চীফ রাষ্ট্রপতি মাইকেল সাতা। জাম্বিয়ার ওয়াচডগের সৌজন্যে।

জাম্বিয়ার পশ্চিমী প্রদেশের বিচ্ছিন্নতার আহবান জানানো বিভিন্ন দলের আধাসামরিক শাখা বলে ধারণা করা বারোতসে মুক্তি বাহিনীর অস্তিত্ব সম্পর্কে নিশ্চিত করে বলা কঠিন হয়ে পড়েছে। তবে রাষ্ট্রপতি মাইকেল সাতার বিদ্রোহী এক্টিভিস্টদের হত্যার আদেশটি সত্যি হয়ে থাকলে সংস্থাটি যে কোনভাবে জাম্বিয়ার জাতীয় নিরাপত্তার জন্যে একটি মারাত্মক হুমকি বিবেচিত।

বারোতসে মুক্তি বাহিনীতে কাজ করার জন্যে বিদ্রোহীরা সাবেক সৈন্য ও পুলিশদের নিযুক্ত করার অভিযোগ পাওয়ার পরে ৩০শে নভেম্বর, ২০১২ তারিখে আদেশটি করা হয়েছিল। দক্ষিণাঞ্চলীয় আফ্রিকার উন্নয়ন কমিউনিটি (এসএডিসি) আঞ্চলিক প্রতিরক্ষা কমান্ড স্টাফ কলেজের স্নাতকদের একটি অনুষ্ঠানে ভাষণ দেওয়ার সময় সাতা বলেছেন:

লুকুলু’তে (পশ্চিমী প্রদেশ) জনগণ বারোতসে মুক্তি বাহিনী নামে একটি দল গঠন করে তারা লোকজন নিয়োগ করছে। আজকের দিন পর্যন্ত আমি জানি যে তারা ২৭৬ জনকে নিয়োগ দান করেছে। সাবেক সেনা কর্মকর্তা, পুলিশ কর্মকর্তা ও সাবেক তস্করদের নিয়োগ করে তারা আমাদের বিরুদ্ধে দাঁড়াতে চাচ্ছে আর (তাই) আমাদের প্রস্তুত থাকতে হবে… আর আপনারা সেনাবাহিনীর কমান্ডারগণ, আমি আপনাদেরকে আগেই বলেছি যে আমার সেনাবাহী বিমান দরকার কারণ কিভাবে আমি লুকুলুতে সৈন্য পরিবহন করবো?

সেনাবাহিনীর প্রস্তুতির অভাব এবং অঞ্চলটিতে অস্থিরতার প্রতি (তাদের) কথিত সহিষ্ণুতার একটি ছদ্ম সমালোচনা করে সাতা বলেছেন:

আমাদের সৈন্যরা স্নাতক হচ্ছে কিন্তু তাদের কেউ কেউ যোগদান থেকে অবসর গ্রহণ পর্যন্ত কখনোই বন্দুক দিয়ে একটি গুলিও করেনি… প্রশিক্ষণ এবং অভিযানে গিয়ে কর্মকাণ্ডে (যুদ্ধে) অংশ নেওয়ার মধ্যে পার্থক্য রয়েছে। এই দেশকে রক্ষা করার জন্যে আপনাকে ভালভাবে প্রশিক্ষিত হতে হবে।

ফেসবুক গোষ্ঠী জাম্বিয়ার কণ্ঠস্বর-এ ইসিকান্দা ওয়ামুলওয়াঙ্গে রাষ্ট্রপতি সাতা’র আহবানে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন:

পশ্চিমী প্রদেশের তথাকথিত “বিদ্রোহীদের” বিরুদ্ধে সামরিক বাহিনী ব্যবহার করা হলে হয়তো এটা গৃহযুদ্ধের সূচনা করবে না, এই সমস্যা সমাধানের জন্যে এর থেকে কী কোন ভাল উপায় নেই।

চিলেশে তায়ালি একই আলোচনা সূত্রে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন:

নিশ্চয়ই বিআরই [বারোতসে রাজকীয় সংস্থাপন] বিরোধ নিরসনের জন্যে রাষ্ট্রপতির বিস্ফোরণটি সেরা উপায় নয়। প্রকাশ্যে তিনি যুদ্ধ ঘোষণা করছেন। আমি কাছে তার নির্দেশনা খুব খামখেয়ালী মনে হচ্ছে।

স্থানীয় একটি অনলাইন প্রকাশনা বারোতসে পোস্ট rরিপোর্ট করেছে যে সৈন্য পাঠানো হয়েছে এলাকাটিতে কিন্তু বিদ্রোহীদের খুঁজে পেতে ব্যর্থ হয়ে সৈন্যদের ফেরত নিয়ে আসা হয়েছে:

কাল্পনিক বারোতসে মুক্তি বাহিনীর এক্টিভিস্টদের কর্মীদের খুঁজে না পেয়ে রবিবার, ২রা ডিসেম্বর, তারিখে জাম্বিয়ার বাহিনী লুকুলু থেকে তাদের অবমাননাকর প্রত্যাহার শুরু করে। বনের মোষ তাড়াতে পাঠানো কয়েকটি বিশেষ বাহিনীকে বহন করা চারটি হেলিকপ্টারকে উড়তে দেখা গিয়েছে। মুখ রক্ষা করার জন্যে হতাশ এবং লজ্জিত প্রতিরক্ষা মন্ত্রী বিএলএ সম্পর্কে তথ্যের জন্যে এলাকাবাসীর কাছে আবেদন করেছেন। এটি বারোতসেভূমি সমস্যাটি নিয়ে জাম্বিয়ার সরকার কতটা শংকিত তা প্রদর্শন করেছে মাত্র।

একই প্রকাশনাটি বারোতসে জনগণের বিরুদ্ধে কথিত মিথ্যা বানানোর দায়ে জাম্বিয়ার সরকারকে অভিযুক্ত করেছে:

বেশিদিন আগের কথা নয় জাম্বিয়ার জনগণকে একটা মিথ্যা বলা হয়েছিল যে কাওমাতে বারোতসেভূমি মুক্তি আন্দোলনে অবসরপ্রাপ্ত সামরিক ব্যক্তিদের নিয়োগ করা হচ্ছে। এই দাবিটির পরে সাম্প্রতিককালে বারোতসেভূমির ঙ্গাম্বেলা [প্রধানমন্ত্রী] পদ থেকে জনাব ক্লেমেন্ট সিনিয়ান্দা’র পদত্যাগের প্রাক্কালে বিদ্বেষপূর্ণ আরেকটিতে বলা হয় যে সেনাঙ্গা এবং সেশেকে এলাকার কিছু লোজি জনগণ লিতুঙ্গা’কে [রাজা] সিংহাসনচ্যুত করার জন্যে সংগঠিত হচ্ছে।

জাম্বিয়ার সরকারগুলো ধারাবাহিকভাবে ১৯৬৪ সালে স্বাধীনতার সময় জাম্বিয়ার বাকি অংশের সঙ্গে এই অঞ্চলটিকে একত্রিত করা ১৯৬৪ সালের বারোতসেভূমি চুক্তি উপেক্ষা করার অভিযোগে পশ্চিমী প্রদেশের বিচ্ছিন্নতার আহবান গত কয়েক বছর ধরে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে।

বিরোধী একজন নেতা হিসেবে সাতা চুক্তিটি পুণরুদ্ধারের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল  অফিসে বসার ৯০ দিনের মধ্যে। কিন্তু আশ্চর্যজনকভাবে  তিনি এখন এর বিরুদ্ধে একটি যুদ্ধংদেহী অবস্থান গ্রহণ করেছেন এবং এখনো কোন সংলাপ ধারে কাছে নেই মনে হচ্ছে।

ISN logoবিশ্বব্যাপী আন্তর্জাতিক সম্পর্ক এবং নিরাপত্তা বিষয়ে নাগরিক কণ্ঠস্বর অন্বেষণের অংশ হিসাবে এই পোস্ট এবং এর স্প্যানিশ, আরবি এবং ফরাসি অনুবাদের দায়িত্ব আন্তর্জাতিক নিরাপত্তা নেটওয়ার্ক (আইএসএন) এর। আইএসএন ব্লগে এই পোস্টটি প্রথমে প্রকাশিত, আরো গল্পের জন্যে এখানে দেখুন।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .