বন্ধ করুন

গ্লোবাল ভয়েসেসকে শক্তিশালী করতে আমাদের সহায়তা করুন

আমরা ১৬৭টি দেশের উপর রিপোর্ট করি। আমরা ৩৫টি ভাষায় অনুবাদ করি। আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস।

প্রায় ৮০০ এর বেশী গ্লোবাল ভয়েসেস এর লেখক একসাথে কাজ করছে আপনার কাছে অজানা সব গল্প তুলে ধরতে। কিন্তু আমাদের পক্ষে একা সব করা কঠিন। আমাদের অনেকেই স্বেচ্ছাসেবক হলেও আমাদের সম্পাদক, প্রযুক্তি এবং অ্যাডভোকেসী প্রকল্প ও সামাজিক অনুষ্ঠানের ব্যয়ভারের মেটানোর জন্যে আপনাদের সাহায্য প্রয়োজন।

আমাদের সহায়তা করুন এখানে ক্লিক করে: »
GlobalVoices পাওয়া যাবে আরও জানুন »

সাবেক স্বৈরশাসকের কন্যা দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত

১৯শে ডিসেম্বর, ২০১২ তারিখে পার্ক জিউন হিয়ে দক্ষিণ কোরিয়ার রাষ্ট্রপতি হিসেবে নির্বাচিত  হয়েছেন। তিনি ক্ষমতাসীন রক্ষণশীল সেনুরী পার্টির এবং সাবেক স্বৈরশাসক পার্ক চুং-হি’র কন্যা।

প্রধানতঃ পিতৃতান্ত্রিক একটি সমাজে প্রথম নারী প্রেসিডেন্ট হিসাবে নির্বাচিত হওয়ার কৃতিত্ব সত্ত্বেও তার দলের দুর্নীতি সংক্রান্ত খ্যাতি এবং পিতার স্বৈরতন্ত্রের প্রতি তার অস্পষ্ট এবং উদ্ধত মনোভাবের কারণে তরুণ উদারবাদী এবং এক্টিভিস্টরা পার্কের তীব্র বিরোধিতা করেছে। পার্ক চুং-হি – তার স্বৈরাচারী শাসনের এবং তার অধীনে ঘটা ব্যাপক অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্যে – দক্ষিণ কোরিয়ার আধুনিক ইতিহাসের সবচেয়ে একমুখী ব্যক্তিত্ব।

হাড্ডাহাড্ডি প্রতিদ্বন্দ্বিতা এবং বিভিন্ন সমস্যা ও পার্টি সংশ্লিষ্টতা নিয়ে জাতির তীব্র বিভক্তি দেশটির রাজনৈতিক দৃশ্যপটের পরিস্থিতি প্রদর্শন করছে। প্রকৃতপক্ষেই প্রতিদ্বন্দ্বিতাটি অত্যন্ত হাড্ডাহাড্ডি ছিল এবং এমনকি প্রস্থান ভোটের ফলাফল জানার বেশ কয়েক ঘন্টা পরেও ঘোষণা করার জন্যে বেশি কাছাকাছি ছিল।

Park Geun-hye during campaign

প্রচারাভিযানের সময় পার্ক জিউন হিয়ে। আপলোড করেছেন ফ্লিকার ব্যবহারকারী 박근혜 공식앨범 (সিসি ২.০ বাই-এনসি-এসএ)

অনেক নেট ব্যবহারকারী বেশ কয়েক মাস ধরে পার্কের পক্ষাবলম্বন করার জন্যে দক্ষিণ কোরিয়ার মূলধারার মিডিয়াকে অভিযুক্ত করেছে; এবং বিশেষ করে তাদের প্রচারাভিযানের কাভারেজে ঐতিহাসিক বিষয়গুলোকে খুব সামান্যই নিয়ে আসার জন্যে। তারা উল্লেখ করেছে [কোরীয় ভাষায়] যে আন্তর্জাতিক প্রতিবেদনগুলোতে পার্ককে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার সময় সর্বদা পার্কের পিতার কথা বলা হয়েছে। ‏@কামব্যাক _এমজে২৩ লিখেছেন [কোরীয় ভাষায়]:

잠들기 전에 우리나라 대선에 관한 외신(BBC, CNN, NYT 등..) 기사를 훑어보고 있는데… 공통적으로 쓰이는 한 문장이 너무 선명하게 보인다. 굳이 언급할 필요가 없는 바로 그 문장… 과연 그 분이 스스로 굴레를 벗어던질 수 있을까?

বিছানায় যাওয়ার আগে আমি অন্যান্য বিদেশী মিডিয়া (যেমন বিবিসি, সিএনএন, নিউইয়র্ক টাইমস ইত্যাদি) কিভাবে আমাদের রাষ্ট্রপতি নির্বাচন কাভার করেছে তা দেখে তাদের শিরোনাম পড়েছি। আমি রিপোর্টগুলোর ভাগাভাগি করা একটি সাধারণ বাক্যাংশ লক্ষ্য না করে পারিনি। যেই বাক্যটিকে নিশ্চিতভাবেই বিবেচনা করতে হবে। তিনি কী সেই উপাধি ছূঁড়ে ফেলে দিতে পারবেন? [নোট: পার্ক যে সেই স্বৈরশাসকের কন্যা তা উল্লেখ করে]

@এনিয়োং রাষ্ট্রপতি বিতর্কে সময় প্রায় প্রতিটি বিষয়ে পার্ককে পর্যুদস্ত করা কিন্তু দ্রুতই প্রতিদ্বন্দ্বিতা থেকে বাদ পড়ে যাওয়া একজন মহিলা প্রতিদ্বন্দ্বি লি জুং-হি সম্পর্কে লিখেছেন [কোরীয় ভাষায়]।

[...] 이정희는 여태 한국 사회와 언론이 썩혀두면서 아무도 건드릴 생각도 못했던 걸 들춰냈다. 심지어 당사자 앞에서. 더군다나 공중파 대선토론에서. 그걸 보고 듣고도 사람들이 깨달음이 없었다는 게 슬프다.

লি জুং-হি নেটওয়ার্ক টিভিতে রাষ্ট্রপতি বিতর্ক সম্প্রচারের সময় এমন কিছু খুঁড়ে বের করতে পেরেছিলেন যা কোরীয় সমাজ এবং মিডিয়া পর্যন্ত কখনো স্পর্শ করতে সাহস করেনি। এটি খুবই দু:খের বিষয় যে সেই বিতর্কটি দেখেও জনগণ বুঝতে পারেনি।

@কেবিএসমাকরেকার আরো যোগ করেছেন [কোরীয় ভাষায়]:

사실 이번 대선결과는 예정된 것이었다. 지상파와 조중동 등 여론시장을 지배하는 주류매체가 일방적으로 박근혜를 지원하는 상황에서 다른 결과를 이끌어내긴 힘들었다. 이런 수구 권언복합구도를 깨지 않으면 앞으로도 어렵다.

এই রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের ফলাফলটি ছিল একটি অপ্রত্যাশিত ব্যাপার। বিভিন্ন নেটওয়ার্ক টিভি এবং চো-জুং-ডং [নোট: দক্ষিণ কোরিয়ার প্রধান তিনটি জনপ্রিয় সংবাদপত্র চোসুন, জুংগাং এবং ডংগা - এর আদ্যক্ষরের একটি সমন্বয়] এর জনগণের আলোচনাকে প্রভাবিত এবং পার্ককে এককভাবে সমর্থন করার মতো একটি পরিস্থিতিতে ভিন্ন একটি ফলাফল বের করে আনা খুবই কঠিন ছিল। আমরা রক্ষণশীল শক্তি এবং মিডিয়ার এই বন্ধনের অবসান না ঘটাতে পারলে ভবিষ্যতে আমরা বারবার একটি কঠিন পরিস্থিতির মুখোমুখি হবো।

@এসটিপিএসটিপি৯১৯ এশিয়ার তিনটি দেশের কয়েকটি পরিবার কিভাবে প্রজন্মের পর প্রজন্ম ধরে ক্ষমতা আঁকড়ে ধরে রেখেছে সেটা ভাগাভাগি করা একটি টুইট উল্লেখ করেছেন [কোরীয় ভাষায়]।

유미리 트위터 “한국대선에서 박근혜가 승리하면,박정희 대통령의 딸과 김일성주석의 손자와 기시 노부스케 총리의 손자가 맞서게 된다.”

ইউমিরি’র টুইট বলেছে “দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে পার্ক জিতলে আমরা (আন্তর্জাতিক বিষয়ক) মঞ্চে পার্ককে (উত্তর কোরিয়ার) কিম ইল-সুঙের নাতি এবং নোবুসুকে কিশি’র নাতির (শিনজো আবে’কে নির্দেশ করে) মুখোমুখি দেখতে পাবো।

Moon Jae-In during campaign

মুন জায়ে-ইন প্রচারাভিযানের সময়, প্রধান বিরোধীদল ইউনাইটেড ডেমোক্রেটিক পার্টির রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী। ফ্লিকার ব্যবহারকারী মুনজায়েইন (সিসি ২.০ বাই-এনসি-এনডি)

এই নির্বাচনে এক দশকের মধ্যে সর্বোচ্চ রেকর্ড সংখ্যক ৭৫.৮% ভোটার  [কোরীয় ভাষায়] ভোটদান করেছে @রিয়েলোলল এই বিষয়টি সম্পর্কে মন্তব্য করেছেন  [কোরীয় ভাষায়]:

한 사이트에서 봤던 인상 깊은 글. “이번 투표율이 높았던건 그만큼 국민들이 깨어 있다는 걸 의미하지만 단기간에 그렇게 올랐다는건 지난 대선과 이번 대선간의 빈 공백의 기간동안 국민들이 불만이 많았거나 살기 어려웠단걸 뜻하지”

আমি একটি সাইটে এই আকর্ষণীয় পোস্টটি পড়েছি “এই নির্বাচনে ভোট প্রদানকারীদের এত উচ্চ হারের ঘটনাটি জনগণের রাজনীতি সচেতনতার একটি ইঙ্গিত বহণ করে। তবে একইসঙ্গে যে বাস্তবতাটি (ভোটদানের) হারটিকে এতো তীব্রভাবে বৃদ্ধি করেছে যে এটা থেকে বুঝা যায় যে বিগত এবং বর্তমান রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের বছরগুলোতে জনগণের মধ্যে অনেক অভিযোগ জমা হয়েছিল এবং এসময়টা তাদের জন্যে কষ্টকর ছিল।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .


বিশ্বের অঞ্চলসমূহ

দেশ

ভাষা

বিশেষ টপিক

লেখাটির সাথে আছে